ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম:
রাষ্ট্রপতির পুলিশ পদকে ভূষিত হলেন ফরিদগঞ্জের শামছুন্নাহার এসএসসির প্রশ্ন ফাঁস: মনোহরগঞ্জে ২ শিক্ষক জেলে, প্রধান শিক্ষক পলাতক বদলে গেছে শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স স্থানীয় সরকার দিবস উপলক্ষে শ্রীপুরে র‍্যালি ও আলোচনা সভা শাহরাস্তি রেল স্টেশন বাজার কমিটি নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে মো.সাইফুল ইসলাম সকলের দোয়াপ্রার্থী বিডি হিউম্যান অর্গানাইজেশন এর আইসিটি অলিম্পিয়াড বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠান সম্পন্ন  শাহরাস্তিতে পিতা-মাতাকে ঘর থেকে বের করে দেয়ায় গ্রেফতার পুত্র শাহরাস্তি প্রেসক্লাবের আয়োজনে মহান একুশে ফেব্রুয়ারি মাতৃভাষা দিবস পালিত নিজমেহার ভাই বন্ধু একতা ক্লাব উদ্যোগে প্রীতি ফুটবল খেলা অনুষ্ঠিত নিজমেহার ইয়াং স্টার ক্লাবের কমিটি গঠন

শাহরাস্তির কৃতি সন্তান মনির হোসাইনের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পদোন্নতি লাভ

প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম শ্রেণী কর্মকর্তা হিসেবে পদোন্নতি পেয়েছেন চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলার কৃতি সন্তান মোহাম্মদ মনির হোসাইন। গত ৪ জুন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের  সিন্ডিকেট থেকে জারিকৃত এবং রেজিষ্ট্রার প্রবীর কুমার সরকার স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে তাকে এ পদোন্নতি দেওয়া হয়।

বর্তমানে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান প্রকৌশলীর অফিসের সিনিয়র টেলিফোন অপারেটর (গ্রেড-১২) হিসেবে দায়িত্ব পালন করে টেকনিক্যাল অফিসার, (প্রথম শ্রেণি কর্মকর্তা) হিসেবে প্রধান প্রকৌশলী দপ্তরে বিদ্যুৎ, পাম্প, টেলিফোন শাখায়(গ্রেড-৯) পদোন্নতি প্রাপ্ত হন।

কর্মজীবনে সততা, নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার মধ্যদিয়ে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের সকলের মনে স্থান করে নিয়েছেন। পরিচ্ছন্ন মননশীল, সদালপী ও বিনয়ী এই মানুষটি সরকারি কর্তব্য পালনের পাশাপাশি শাহরাস্তি উপজেলার মানুষের প্রতি মমত্ববোধ ও ভালোবাসার টান থেকেই বিভিন্ন উন্নয়ন ও মানব সেবামূলক কাজে সর্বাত্মক সহযোগিতাও করে যাচ্ছেন।

চাঁদপুর জেলার শাহরাস্তি উপজেলার পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ড ঘুঘুশালে সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহন করে মোহাম্মদ মনির হোসাইন। তার পিতার নাম মোহাম্মদ হোসাইন ও মাতার নাম সুফিয়া বেগম।বাবার আদর্শ বুকে নিয়ে বেড়ে ওঠা এই মানুষটি আজ গোটা শাহরাস্তির বাসীর গর্ব ও অহংকার। শৈশব থেকেই শুভ্র-চল স্বভাবের এবং নানা প্রতিভায় গুনান্বীত মানুষ ছিলেন তিনি। ভাল কিছু শেখার নেশায় তিনি সারাক্ষন মেতে থাকতেন।

এ বিষয় সদ্য পদোন্নতি প্রাপ্ত মোহাম্মদ মনির হোসাইন বলেন, ‘‘আমার এ পদোন্নতির জন্য  প্রথমেই মহান সৃষ্টিকর্তার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি। আমার পিতা-মাতার আদর্শ ও ভালোবাসায় আজ আমি এখানে এসেছি। সব সময় আমার উপর অর্পিত দায়িত্ব নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার মধ্য দিয়ে পালন করছি এবং ভবিষ্যতেও করবো।

Facebook Comments Box
Tag :
About Author Information

RAFIU HASAN

Popular Post

রাষ্ট্রপতির পুলিশ পদকে ভূষিত হলেন ফরিদগঞ্জের শামছুন্নাহার

শাহরাস্তির কৃতি সন্তান মনির হোসাইনের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পদোন্নতি লাভ

Update Time : ১১:৪৬:০৯ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১২ জুন ২০২৩

প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম শ্রেণী কর্মকর্তা হিসেবে পদোন্নতি পেয়েছেন চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলার কৃতি সন্তান মোহাম্মদ মনির হোসাইন। গত ৪ জুন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের  সিন্ডিকেট থেকে জারিকৃত এবং রেজিষ্ট্রার প্রবীর কুমার সরকার স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে তাকে এ পদোন্নতি দেওয়া হয়।

বর্তমানে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান প্রকৌশলীর অফিসের সিনিয়র টেলিফোন অপারেটর (গ্রেড-১২) হিসেবে দায়িত্ব পালন করে টেকনিক্যাল অফিসার, (প্রথম শ্রেণি কর্মকর্তা) হিসেবে প্রধান প্রকৌশলী দপ্তরে বিদ্যুৎ, পাম্প, টেলিফোন শাখায়(গ্রেড-৯) পদোন্নতি প্রাপ্ত হন।

কর্মজীবনে সততা, নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার মধ্যদিয়ে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের সকলের মনে স্থান করে নিয়েছেন। পরিচ্ছন্ন মননশীল, সদালপী ও বিনয়ী এই মানুষটি সরকারি কর্তব্য পালনের পাশাপাশি শাহরাস্তি উপজেলার মানুষের প্রতি মমত্ববোধ ও ভালোবাসার টান থেকেই বিভিন্ন উন্নয়ন ও মানব সেবামূলক কাজে সর্বাত্মক সহযোগিতাও করে যাচ্ছেন।

চাঁদপুর জেলার শাহরাস্তি উপজেলার পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ড ঘুঘুশালে সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহন করে মোহাম্মদ মনির হোসাইন। তার পিতার নাম মোহাম্মদ হোসাইন ও মাতার নাম সুফিয়া বেগম।বাবার আদর্শ বুকে নিয়ে বেড়ে ওঠা এই মানুষটি আজ গোটা শাহরাস্তির বাসীর গর্ব ও অহংকার। শৈশব থেকেই শুভ্র-চল স্বভাবের এবং নানা প্রতিভায় গুনান্বীত মানুষ ছিলেন তিনি। ভাল কিছু শেখার নেশায় তিনি সারাক্ষন মেতে থাকতেন।

এ বিষয় সদ্য পদোন্নতি প্রাপ্ত মোহাম্মদ মনির হোসাইন বলেন, ‘‘আমার এ পদোন্নতির জন্য  প্রথমেই মহান সৃষ্টিকর্তার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি। আমার পিতা-মাতার আদর্শ ও ভালোবাসায় আজ আমি এখানে এসেছি। সব সময় আমার উপর অর্পিত দায়িত্ব নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার মধ্য দিয়ে পালন করছি এবং ভবিষ্যতেও করবো।

Facebook Comments Box