ঢাকা , শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম:
মেজর (অবঃ) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তমের নির্দেশে উয়ারুকে থামবে আইদি পরিবহন আমি ৯৬ সালের রফিকুল ইসলাম নই, আমি ২৪ সালের রফিকুল ইসলাম স্ত্রী নির্যাতনের প্রতিকার চেয়ে প্রবাসী খোরশেদ আলমের সাংবাদিক সম্মেলন শাহরাস্তিতে জিয়াউর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকীতে বিএনপির আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্টিত শাহরাস্তি ক্রিকেট একাডেমীর আয়োজনে ট্যালেন্ট হান্টের পর্দা উঠলো আজ সবসময় সাধারণ মানুষের পাশে থাকবেন মৌসুমি সরকার শাহরাস্তিতে দেবরের কোদালের কোপে ভাবির মৃত্যু প্রিয় নেতাকে বিজয়ী করতে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে শরিফ খান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মৌসুমিকে বিজয়ী করতে চায় জনগণ আবদুল জলিল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হবেন বলে জানালেন সাধারণ জনতা

ফরিদগঞ্জে পাইকপাড়া ফেসবুকের পোষ্ট নিয়ে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষ আহত-৪

ফরিদগঞ্জ উপজেলার পাইকপাড়া ইউ.জি উচ্চ বিদ্যালয়ে ৮ম ও ৯ম শ্রেনীর শিক্ষার্থীরা ১১ মে বৃহস্পতিবার ফেইসবুকে লাইক কমেন্ট নিয়ে তর্ক বিতর্ককের এক পর্যায়ে ধারালো অস্ত্র নিয়ে রক্তক্ষয়ি সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে দু’গ্রুপের কমপক্ষে ৪ জন কম বেশি আহত হয়। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে। এই ঘটনায় বিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ ১৩ জন শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিস্কার করেছে।

অভিভাবক ও স্থানীয়দের সূত্রে জানা যায়, ৮ম শ্রেনীর শিক্ষার্থী সাহেদ ও ৯ম শ্রেণীর তাহিদ তাদের ফেইস বুকে লাইক কমেন্ট নিয়ে গত দুইদিন ধরে ম্যাচেঞ্জরে নানা অশ্লিল বাক্য বিনিময় হয়। ওইদিন সকালে তারা উভয় বিদ্যালয়ে ক্লাশ করতে এসে ৮ম শ্রেণীর সাহেদের উপর ৯ম শ্রেণীর ইমান, রোখসান, নিরব, শহিদুল, আবরার, তহিদ, হিমেল ও সৈকত ৮ম শ্রেণীর ক্লাশে ঢুকে সাহেদসহ তার সহপাঠিদের উপর হামলা চালায়। এতে, ৮ম শ্রেণীর সাহেদ, ফাহাদ, আদিল ও ৯ম শ্রেণীর আল-আমিন গুরুতর আহত হয়।

এবিষয়ে বিদ্যায়লের সহকারী প্রধান শিক্ষক ছলিম উল্যাহ জানান, ফেইসবুকের ঘটনা নিয়ে উল্লেখিত শিক্ষার্থীরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে, আমরা তাৎক্ষণিক সেখানে উপস্থিত হয়ে তাদের শান্ত করি। ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে প্রধান শিক্ষকের নির্দেশে দুই শ্রেনীর ১৩ জন কে সাময়িক বহিস্কার করি।

কয়েকজন অভিভাবক বলেন, দূর্বল প্রশাসনিক ব্যবস্থার কারণে প্রায় দিনেই বিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা বহিরাগতদের সাথে নিয়ে শিক্ষার্থদের উপর হামলা করে। ইতি পূর্বে কয়েকবার এই ধরনের ঘটনা ঘটেছে। প্রতিষ্ঠানের পক্ষথেকে কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়না। এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গত তিন বছর ধরে কোন কমিটি না থাকায় বিদ্যালয়ে শৃঙ্খলা নেই।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ আলী জিন্না বলেন, বিষয়টি আমি শুনে সাথে সাথে প্রধান শিক্ষকের সাথে কথা বলেছি। উভয় পক্ষের শিক্ষার্থীদের অভিবাবকের সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দিয়েছি।

Facebook Comments Box
Tag :

মেজর (অবঃ) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তমের নির্দেশে উয়ারুকে থামবে আইদি পরিবহন

ফরিদগঞ্জে পাইকপাড়া ফেসবুকের পোষ্ট নিয়ে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষ আহত-৪

Update Time : ০৬:২১:৩৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ মে ২০২৩

ফরিদগঞ্জ উপজেলার পাইকপাড়া ইউ.জি উচ্চ বিদ্যালয়ে ৮ম ও ৯ম শ্রেনীর শিক্ষার্থীরা ১১ মে বৃহস্পতিবার ফেইসবুকে লাইক কমেন্ট নিয়ে তর্ক বিতর্ককের এক পর্যায়ে ধারালো অস্ত্র নিয়ে রক্তক্ষয়ি সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে দু’গ্রুপের কমপক্ষে ৪ জন কম বেশি আহত হয়। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে। এই ঘটনায় বিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ ১৩ জন শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিস্কার করেছে।

অভিভাবক ও স্থানীয়দের সূত্রে জানা যায়, ৮ম শ্রেনীর শিক্ষার্থী সাহেদ ও ৯ম শ্রেণীর তাহিদ তাদের ফেইস বুকে লাইক কমেন্ট নিয়ে গত দুইদিন ধরে ম্যাচেঞ্জরে নানা অশ্লিল বাক্য বিনিময় হয়। ওইদিন সকালে তারা উভয় বিদ্যালয়ে ক্লাশ করতে এসে ৮ম শ্রেণীর সাহেদের উপর ৯ম শ্রেণীর ইমান, রোখসান, নিরব, শহিদুল, আবরার, তহিদ, হিমেল ও সৈকত ৮ম শ্রেণীর ক্লাশে ঢুকে সাহেদসহ তার সহপাঠিদের উপর হামলা চালায়। এতে, ৮ম শ্রেণীর সাহেদ, ফাহাদ, আদিল ও ৯ম শ্রেণীর আল-আমিন গুরুতর আহত হয়।

এবিষয়ে বিদ্যায়লের সহকারী প্রধান শিক্ষক ছলিম উল্যাহ জানান, ফেইসবুকের ঘটনা নিয়ে উল্লেখিত শিক্ষার্থীরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে, আমরা তাৎক্ষণিক সেখানে উপস্থিত হয়ে তাদের শান্ত করি। ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে প্রধান শিক্ষকের নির্দেশে দুই শ্রেনীর ১৩ জন কে সাময়িক বহিস্কার করি।

কয়েকজন অভিভাবক বলেন, দূর্বল প্রশাসনিক ব্যবস্থার কারণে প্রায় দিনেই বিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা বহিরাগতদের সাথে নিয়ে শিক্ষার্থদের উপর হামলা করে। ইতি পূর্বে কয়েকবার এই ধরনের ঘটনা ঘটেছে। প্রতিষ্ঠানের পক্ষথেকে কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়না। এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গত তিন বছর ধরে কোন কমিটি না থাকায় বিদ্যালয়ে শৃঙ্খলা নেই।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ আলী জিন্না বলেন, বিষয়টি আমি শুনে সাথে সাথে প্রধান শিক্ষকের সাথে কথা বলেছি। উভয় পক্ষের শিক্ষার্থীদের অভিবাবকের সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দিয়েছি।

Facebook Comments Box