ঢাকা , শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম:
মেজর (অবঃ) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তমের নির্দেশে উয়ারুকে থামবে আইদি পরিবহন আমি ৯৬ সালের রফিকুল ইসলাম নই, আমি ২৪ সালের রফিকুল ইসলাম স্ত্রী নির্যাতনের প্রতিকার চেয়ে প্রবাসী খোরশেদ আলমের সাংবাদিক সম্মেলন শাহরাস্তিতে জিয়াউর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকীতে বিএনপির আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্টিত শাহরাস্তি ক্রিকেট একাডেমীর আয়োজনে ট্যালেন্ট হান্টের পর্দা উঠলো আজ সবসময় সাধারণ মানুষের পাশে থাকবেন মৌসুমি সরকার শাহরাস্তিতে দেবরের কোদালের কোপে ভাবির মৃত্যু প্রিয় নেতাকে বিজয়ী করতে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে শরিফ খান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মৌসুমিকে বিজয়ী করতে চায় জনগণ আবদুল জলিল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হবেন বলে জানালেন সাধারণ জনতা

কাতারে ‘ই-পাসপোর্ট’ সেবার শুভ উদ্বোধন

বাংলাদেশ দূতাবাস, দোহা, কাতার ১৯ এপ্রিল ২০২৩ এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ই-পাসপোর্ট সেবার  উদ্বোধন করা হয়। কাতার প্রবাসী বীর মুক্তিযোদ্ধা, ই-পাসপোর্ট ও স্বংক্রিয় বর্ডার নিয়ন্ত্রন ব্যবস্থাপনা এর প্রকল্প পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাদাত হোসেন এর নেতৃত্বে ই-পাসপোর্ট টিম এর সদস্যবৃন্দ, দুতাবাসের কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ, কাতারস্থ বাংলাদেশ কমিউনিটির সদস্যবৃন্দ এবং ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দের উপস্থিতিতে রাষ্ট্রদূত মোঃ নজরুল ইসলাম ই-পাসপোর্ট সেবার উদ্বোধন করেন।

পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত এর মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়। এরপর সুরক্ষা সেবা বিভাগ, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হতে প্রাপ্ত ই-পাসপোর্ট সংক্রান্ত একটি ভিডিওচিত্র প্রদর্শন করা হয়। অনুষ্ঠানে কাতার প্রবাসী বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আবু তালেব কাতারে প্রথম ই-পাসপোর্ট সেবা গ্রহীতা হিসাবে অনুভূতি প্রকাশ করেন। তিনি ই-পাসপোর্ট সেবা চালু করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকারের ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং সেবাটি চালু করার জন্য দূতাবাসকে ধন্যবাদ জানান। অনুষ্ঠানে ই-পাসপোর্ট এর প্রকল্প পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাদাত হোসেন ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম ও প্রকল্প সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেন। এরপর রাষ্ট্রদূত মোঃ নজরুল ইসলাম সেবা গ্রহীতাদের নিকট ডেলিভারি স্লিপ হস্তান্তর করে ই-পাসপোর্ট সেবার উদ্বোধন করেন।

রাষ্ট্রদূত মোঃ নজরুল ইসলাম তার বক্তব্যে এই দিনটিকে বাংলাদেশ দূতাবাস, দোহা-কাতার এর জন্য অনেক তাৎপর্যপূর্ণ বলে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন ই-পাসপোর্ট সেবা চালুর মাধ্যমে কাতার প্রবাসী বাংলাদেশিদের ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট সংক্রান্ত ভ্রমণ ও আবাসন প্রক্রিয়া আরো সহজ ও নিরাপদ হবে। ই-পাসপোর্টকে সর্বাধুনিক ট্রাভেল ডকুমেন্ট উল্লেখ করে তিনি বলেন এ প্রক্রিয়ায় উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহৃত হওয়ায় এর বিশ্বাসযোগ্যতা ও গ্রহণযোগ্যতা অনেক বেশি। তিনি সবাইকে ই-পাসপোর্ট গ্রহণ করার প্রক্রিয়ায় অংশগহণের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ২০৪১ সালে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার প্রক্রিয়াকে আরো বেগবান করার আহবান জানান।

Facebook Comments Box
Tag :

মেজর (অবঃ) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তমের নির্দেশে উয়ারুকে থামবে আইদি পরিবহন

কাতারে ‘ই-পাসপোর্ট’ সেবার শুভ উদ্বোধন

Update Time : ০১:০১:২৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৩

বাংলাদেশ দূতাবাস, দোহা, কাতার ১৯ এপ্রিল ২০২৩ এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ই-পাসপোর্ট সেবার  উদ্বোধন করা হয়। কাতার প্রবাসী বীর মুক্তিযোদ্ধা, ই-পাসপোর্ট ও স্বংক্রিয় বর্ডার নিয়ন্ত্রন ব্যবস্থাপনা এর প্রকল্প পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাদাত হোসেন এর নেতৃত্বে ই-পাসপোর্ট টিম এর সদস্যবৃন্দ, দুতাবাসের কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ, কাতারস্থ বাংলাদেশ কমিউনিটির সদস্যবৃন্দ এবং ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দের উপস্থিতিতে রাষ্ট্রদূত মোঃ নজরুল ইসলাম ই-পাসপোর্ট সেবার উদ্বোধন করেন।

পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত এর মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়। এরপর সুরক্ষা সেবা বিভাগ, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হতে প্রাপ্ত ই-পাসপোর্ট সংক্রান্ত একটি ভিডিওচিত্র প্রদর্শন করা হয়। অনুষ্ঠানে কাতার প্রবাসী বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আবু তালেব কাতারে প্রথম ই-পাসপোর্ট সেবা গ্রহীতা হিসাবে অনুভূতি প্রকাশ করেন। তিনি ই-পাসপোর্ট সেবা চালু করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকারের ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং সেবাটি চালু করার জন্য দূতাবাসকে ধন্যবাদ জানান। অনুষ্ঠানে ই-পাসপোর্ট এর প্রকল্প পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাদাত হোসেন ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম ও প্রকল্প সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেন। এরপর রাষ্ট্রদূত মোঃ নজরুল ইসলাম সেবা গ্রহীতাদের নিকট ডেলিভারি স্লিপ হস্তান্তর করে ই-পাসপোর্ট সেবার উদ্বোধন করেন।

রাষ্ট্রদূত মোঃ নজরুল ইসলাম তার বক্তব্যে এই দিনটিকে বাংলাদেশ দূতাবাস, দোহা-কাতার এর জন্য অনেক তাৎপর্যপূর্ণ বলে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন ই-পাসপোর্ট সেবা চালুর মাধ্যমে কাতার প্রবাসী বাংলাদেশিদের ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট সংক্রান্ত ভ্রমণ ও আবাসন প্রক্রিয়া আরো সহজ ও নিরাপদ হবে। ই-পাসপোর্টকে সর্বাধুনিক ট্রাভেল ডকুমেন্ট উল্লেখ করে তিনি বলেন এ প্রক্রিয়ায় উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহৃত হওয়ায় এর বিশ্বাসযোগ্যতা ও গ্রহণযোগ্যতা অনেক বেশি। তিনি সবাইকে ই-পাসপোর্ট গ্রহণ করার প্রক্রিয়ায় অংশগহণের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ২০৪১ সালে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার প্রক্রিয়াকে আরো বেগবান করার আহবান জানান।

Facebook Comments Box